Breaking News
Home / মালয়েশিয়া / মালয়েশিয়ায় অবৈধ অভিবাসীদের আর লুকিয়ে থাকার প্রয়োজন হবে না

মালয়েশিয়ায় অবৈধ অভিবাসীদের আর লুকিয়ে থাকার প্রয়োজন হবে না

মালয়েশিয়ায় গত বছরের নভেম্বরে শুরু হওয়া শ্রম পু’নরু’দ্ধার কর্মসূচি এখনও অব্যাহত রয়েছে। এ অবস্থায় অ’বৈধ অভিবাসীদের জন্য পুনরায় সাধারণ ক্ষ’মার প্রয়োজন নেই বলে জানিয়েছেন দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী দাতুক সেরি হামজাহ জয়নুদিন। তিনি বলেন, অ’বৈধ অভিবাসীদের চিহ্নিত করার জন্য পরিচালিত অভি’যান আগামীতেও অব্যাহত থাকবে।

শুক্রবার (১১ জুন) দেশটির জাতীয় সংবাদ মাধ্যম দ্য স্টারকে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে হামজা বলেন, যেসব অভিবাসীর যথাযথ কাগজপত্র নেই। এ অভিযানের কারণে যারা মালয়েশিয়ায় থাকার যোগ্যতা হা’রিয়েছেন তাদের দেশে পাঠানো সহজ হবে। ফলে অ’বৈধ অভি’বাসীদের আর লু’কিয়ে থাকার প্রয়োজন হবে না।

এদিকে ল’কডা’উন চলাকালে অ’বৈধ অভিবাসীদের বি’রু’দ্ধে পরিচালিত সরকারের এ অ’ভিযা’নের স’মালোচনা করেছে অনেক মানবাধিকার সংগঠন। তাদের দা’বি, ক’রো’না টি’কা কর্মসূচি সুষ্ঠুভাবে বাস্তবায়নের জন্য এ অ’ভিযা’ন বন্ধ রাখা উচিত। একইসঙ্গে তারা অ’বৈধ অভিবাসীদের সাধারণ ক্ষ’মার আহ্বান জানিয়েছে। তাছাড়া এ অভিযানের ফলে অ’বৈধ অভিবাসীদের আ’ত্মগো’পনের দিকে ঠেলে দেওয়া হচ্ছে। যা ক’রো’না সং’ক্র’মণ বৃদ্ধির ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। এ প্রসঙ্গে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী দাতুক সেরি হামজাহ জয়নুদিন বলেন, অভিযান পরিচালনা না করলে অ’বৈধ অভিবাসীদের বের করে আনা সম্ভব হবে না।

যাদের সম্পর্কে কোনো তথ্য সরকারের হাতে নেই তাদের কীভাবে সাধারণ ক্ষ’মা করা হবে? আমাদের সবসময় দেশের স্বার্থকে প্রাধান্য দিতে হবে। তিনি বলেন, পু’নরু’দ্ধার কর্মসূচি শুরুর পর থেকে ২ লাখেরও বেশি অভিবাসী নিবন্ধিত হয়েছেন। এর মধ্যে প্রায় ১ লাখ ১০ হাজার অভিবা’সী বৈধতা পেতে আবেদন করেছেন। বাকি প্রায় ১ লাখ অ’বৈধ অভিবাসী নিজ দেশে ফিরে গেছেন। স’মালোচ’নাকারীদের উদ্দেশে হামজা বলেন, আমাকে আমার কাজটি করতে দিন। আমরা অ’বৈধ অভিবাসীদের আ’টক করে বর্তমান পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার চেষ্টা করছি। কিছু নিয়োগকর্তা অবৈধ অভিবাসীদের কাজে নিতে আমাদের কাছে আবেদন করেছেন। পর্যায়ক্রমে তাদের কাজে ফিরিয়ে নেওয়া হবে।

তিনি বলেন, গত বছরের ডিসেম্বর পর্যন্ত মালয়েশিয়ায় পিআর স্ট্যাটাস, অস্থায়ী ওয়ার্ক পারমিট এবং স্বামী-স্ত্রী ভিসাসহ বিভিন্ন ভিসায় অন্তত ২.৫ মিলিয়ন বিদেশি নিবন্ধিত ছিলেন। আমরা তাদের নিয়ে উ’দ্বি’গ্ন নই। আমরা জানি তারা কোথায় অবস্থান করছেন। কাজেই যেকোনো সময় তাদের ট্রেস করে ভ্যা’কসি’ন দেওয়া সম্ভব হবে। হামজা জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থার (ইউএনএইচসিআর) হাইকমিশনারকে সতর্ক করে বলেন, ইউএনএইচসিআরের কার্ড দেওয়ার ক্ষেত্রে পরীক্ষা নিরীক্ষা করতে হবে। তা নাহলে অ’বৈধ অভিবাসীদের সংখ্যা আগামী কয়েক বছরে আরও বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

এদিকে মালয়েশিয়া ইমিগ্রেশনের ফেসবুক পেজে সম্প্রতি বি’জ্ঞপ্তি দিয়ে ক’ঠো’র ল’কডা’উনের মধ্যেও শ্রম পু’নরু’দ্ধার কর্মসূচি অব্যাহত থাকার কথা জানানো হয়। তবে এ কর্মসূচির মেয়াদ বৃ’দ্ধির প্রত্যাশা অ’বৈধ অভিবাসীদের। এরই পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশসহ ১৫টি দেশের কূটনৈতিকরা মেয়াদ বৃদ্ধির জন্য মালয়েশিয়া সরকারকে অনুরো’ধ জানিয়েছেন।

About mk tr

Check Also

৩১ ডিসেম্বরের আগে মালয়েশিয়ায় প্রবেশ করতে পারবে না প্রবাসীরা

মালয়েশিয়ায় ৩১ ডিসেম্বর আগে। নতুন করে কোন বিদেশী কর্মীদের প্রবেশের অনুমতি দিবেনা মালয়েশিয়া। মালয়েশিয়ার বিভিন্ন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *